الصلوۃ والسلام علیک یا رسول اللہ (صلی اللہ علیہ وسلما) اللہ رب محمد صلی علیہ وسلما و علی زویہ والہ ابدالدھور وکرما আসসলাতু ওয়াসসলামু আলাইকা ইয়া রাসুলাল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম).
Gulam-E-Mustafa Hoon Din Ka Paigam Laya Hoon, Pilaan-E-Ke Liye Ahmad Raza Ka Jaam Laya Hoon.

বিষয়:-১৫ টি অসৎ কাজে লিপ্ত হলে আল্লাহর গযব অবতীর্ণ হবে


হযরত আলী ইবনে আবি তালিব রাদিআল্লাহু  তাআ'লা  আনহু সূত্রে বর্ণিত। 
রাসুলুল্লাহ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ  করেছেন
আমার উম্মত যখন পনেরোটি কাজে লিপ্ত হবে তখন তাদের উপর বালা মসীবত আপতিত হবে।
 জিজ্ঞাসা করা হল, ইয়া রাসুলাল্লাহ! সেগুলি "
কি কি ? তিনি বললেন, যখন গণিমতের মাল ব্যক্তিগত সম্পদে পরিণত হবে;
আমানত লুটের মালে পরিণত হবে, যাকাত জরিমানারুপে গণ্য হবে,
 পুরুষ তার স্ত্রীর আনুগত্য করবে এবং তার মায়ের অবাধ্য হবে, বন্ধুর সাথে সদ্ব্যবহার
করা হবে কিন্তু পিতার সাথে দুর্ব্যাবহার করা হবে, মসজিদে হট্টগোল করা
হবে, নিকৃষ্টতম চরিত্রের লোক হবে তার সম্প্রদায়ের নেতা, কোন লোক কে
তার অনিষ্ঠতার ভয়ে সম্মান করা হবে, মদ পান করা হবে, রেশমী বস্ত্র পরিধান করা হবে, নর্তকী গায়িকাদের প্রতিষ্ঠিত করা হবে, বাদ্যযন্ত্রসমূহের
(ব্যাপক) প্রচলন করা হবে এবং উম্মতের শেষ যামানার লোকেরা তাদের
পূর্ববর্তী মনীষিদের প্রতি আভিসম্পাত করবে, তখন তোমরা একটি অগ্নিবায়ু
অথবা ভূমি ধ্বস অথবা আকৃতির আযাবের অপেক্ষা করতে থাকবে।
 (তিরমিযী
শরীফ ২য় খন্ড, ৪৪ পৃষ্ঠা
হযরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন।
 যখন গণিমতের সম্পদ ব্যক্তিগত সম্পদে পরিণত করা হবে,
আমানতের মাল লুটের মালে পরিণত করা হবে যাকাতকে জরিমানা মনে করা
হবে, বেদ্বীনি শিক্ষা প্রচলিত হবে, পুরুষ স্ত্রীর বাধ্য ও অনুগত হবে কিন্তু
মায়ের অবাধ্য হবে, বন্ধু-বান্ধবকে কাছে টেনে আনবে কিন্তু জনককে দূরে
ঠেলে দিবে, মসজিদে হৈচৈ করবে, ফাসেক পাপাচারীরা গোত্রের নেতা হবে, 
নিকৃষ্ট লোক সমাজের কর্ণধার হবে, কোন মানুষের অনিষ্ট হতে রক্ষা পাবার
জন্য তাকে সম্মান প্রদর্শন করা হবে, গায়িকা-নর্তকী ও বাদ্যযন্ত্রের (ব্যাপক)
বিস্তার ঘটবে, প্ৰকাশ্যে মদ পান করা হবে, এই উম্মতের শেষ যুগের
লোকেরা তাদের পূর্ববর্তী মনীষীদের প্রতি অভিসম্পাত করবে, তখন তোমরা
অগ্নিবায়ূ, ভূমিকম্প, আকৃতি বিকৃতি ও পাথর বর্ষণরূপ আযাবের এবং আরো
আলামতের অপেক্ষা করবে যা একের পর এক ধারাবাহিক ভাবে নিপতিত
হতে থাকবে, যেমন পুরানো পুঁতির মালা ছিড়ে গেলে একের পর এক তার
পুতি ঝরে পড়তে থাকে। (তিরমিযী শরীফ ২, খন্ড ৪৪ পৃষ্ঠা)
প্রিয় মুসলমান! উপরোক্ত হাদীস শরীফে যা সংবাদ দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে
অধিকাংশই বর্তমানে দেখা যাচ্ছে, এখন যাকাত থেকে মানুষ বহু দূরে সরে
পড়েছে, তা সম্পর্কে ধর্মীয় বিধান শুনালে উচ্চ পাষ্ট কথা প্রয়োগ করে, কিন্তু
মনে রাখুন যাকাতের অস্বীকারকারী কাফের এবং বিলম্বকারী গুনাহগার।
উপস্থিত সময়ে মানুষ স্ত্রীর অনুগত আর মায়ের অবাধ্য হয়ে পড়েছে কিন্তু
মুসলমান মনে রাখুন আপনার সৎ ব্যবহারের সর্ব শ্ৰেষ্ঠ উপযোগী মাতা ও
পিতা।
 দোস্ত-বন্ধুর জন্য প্রাণ দিতে সম্মত কিন্তু মাতাপিতার জন্য একটি
 খড়কুটোপ্ৰদানেও অসম্মত ।
আল্লাহর ঘর মসজিদে হৈচৈ, তাকে নিজ বাড়ির মত ব্যবহার করে, তাতে 
ক্রয় বিক্রয় করে।
আজ ফাসেক পাপাচারীরাই গোত্রীয় নেতা, যার মধ্যে নামায নায় রোজা
নায় দিবা নিশি অবৈধ কর্মে লিপ্ত তারাই সমাজের কর্ণধার।
গান বাজনা ব্যাপক হারে বেড়ে গিয়েছে উচ্চ স্বরে নির্দিষ্ট ডেসিবলের
উপরে ডি.জে বাজিয়ে মানুষকে জোর করে যন্ত্রনা দেওয়া হয়। এসব সম্পর্কে
মানুষের ধারণা এমন হয়েগেছে যে, তা যে অবৈধ সেটা আর মনেই করেনা।
শেষ কথা এই সবই হল আযাব নেমে আসার মূল কারণ।
আল্লাহ তায়ালা  আমাদের সকলকে সঠিক টা বুঝার ও আমল করার তৌফিক  দান করেন আমীন । 
 
Sign In or Register to comment.