الصلوۃ والسلام علیک یا رسول اللہ (صلی اللہ علیہ وسلما) اللہ رب محمد صلی علیہ وسلما و علی زویہ والہ ابدالدھور وکرما আসসলাতু ওয়াসসলামু আলাইকা ইয়া রাসুলাল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম).
Gulam-E-Mustafa Hoon Din Ka Paigam Laya Hoon, Pilaan-E-Ke Liye Ahmad Raza Ka Jaam Laya Hoon.

এতেকাফ একটি গুরুত্বপূর্ণ এবাদত,

✔️✔️✔️ এতেকাফ  ✔️✔️✔️

এতেকাফ একটি গুরুত্বপূর্ণ এবাদত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকালের পূর্ব-পর্যন্ত নিয়মিত এতেকাফ করেছেন। পরবর্তীতে তাঁর সাহাবিগণ এ ধারা অব্যাহত রেখেছেন। বর্তমানে মুসলিম উম্মাহর মাঝে এ ব্যাপারে শিথিলতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। যা মোটেই কাম্য নয়। অনেকের এ বিষয়ে ন্যূনতম ধারণাও নেই। বিলুপ্ত-প্রায় এ আমলটির মাধ্যমে মুসলিম উম্মাহ আবারও যেন পূর্বের ধারায় ফিরে আসতে পারে সেজন্য কিছু আলোচনা করা হলো। 

✅  এতেকাফের সংজ্ঞা,,,,,

একাগ্রচিত্তে আল্লাহ তাআলার এবাদতের উদ্দেশ্যে বিশেষ পন্থায়, বিশেষ নিয়তে পুরুষের জন্য মসজিদে এবং মহিলারা মহিলারা ঘরে  অবস্থান নেয়াকে এতেকাফ বলে। 

✅ এতেকাফের হুকুম,,,,

রামাদানের শেষ দশকে এতেকাফ করা সুন্নত। আল্লাহ তাআলা বলেন 

وَعَهِدْنَا إِلَى إِبْرَاهِيمَ وَإِسْمَاعِيلَ أَنْ طَهِّرَا بَيْتِيَ لِلطَّائِفِينَ وَالْعَاكِفِينَ وَالرُّكَّعِ السُّجُودِ ﴿১২৫﴾ البقرة

আমি ইবরাহীম ও ইসমাইলকে নির্দেশ দিয়েছি, তোমরা আমার ঘর পবিত্র করবে তাওয়াফকারী, এতেকাফকারী ও রুকু-সেজদাকারীদের জন্যে। (সূরা বাকারা-১২৫)

উম্মুল মোমিনীন আয়েশা (রাদিয়াল্লাহুআনহা:) বলেন 

كان النبي صلى الله يعتكف فى العشر الأواخر من رمضان حتى توفاه الله عزوجل ثم أزواجه من بعده .(رواه البخارى ومسلم)

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইন্তেকালের পূর্ব-পর্যন্ত রামাদানের শেষ দশকে নিয়মিত এতেকাফ করতেন। তার পরে তাঁর স্ত্রী-গণ এতেকাফ করতেন। (বোখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ)

✅ এতেকাফের তাৎপর্য,,,,

এতেকাফের অনেক তাৎপর্য রয়েছে। যেমন 

আল্লাহর সাথে বান্দার সম্পর্ক সুদৃঢ়করণ।
 অহেতুক কথা ও কুপ্রবৃত্তির তাড়না থেকে সংযত থাকা। 

✅ লাইলাতুল কদর তালাশ করা,,,

এটিই ছিল রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এতেকাফের মূল লক্ষ্য। বিশিষ্ট সাহাবি আবু সাঈদ খুদরি (রহমাতুল্লাআলায়হি রাদিয়াল্লাহআনহু).-এর হাদিস তাই প্রমাণ করে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন 

إني اعتكفت العشر الأول ألتمس هذه الليلة، ثم اعتكفت العشر الأوسط، ثم أتيت فقيل لي: إنها في العشر الأواخر، فمن أحب منكم أن يعتكف فليعتكف، فاعتكف الناس معه.

আমি এ রজনি তালাশ করতে গিয়ে প্রথম দশকে এতেকাফ করেছি। অত:পর দ্বিতীয় দশকে। পরে আমাকে বলা হল যে এ রজনি শেষ দশকে। অতএব তোমাদের মাঝে যে এতেকাফ করতে চায় সে যেন তা করে। এর পর লোকেরা তাঁর সাথে এতেকাফ করেছে। (মুসলিম শরীফ) 

✅ মসজিদে অবস্থানের অভ্যাস গড়া,,,,,

এতেকাফের মাধ্যমেই বান্দা স্বীয় হৃদয় মসজিদের সাথে সম্পৃক্ত করণের উপায় খুঁজে পায় এবং তা অভ্যাসে পরিণত করতে সক্ষম হয়। যে সাত শ্রেণির লোকেরা আরশের ছায়ার নীচে আশ্রয় পাবে—তাদের মধ্যে এক শ্রেণি হচ্ছে 

رجل قلبه معلق في المساجد. البخاري

এমন ব্যক্তি যার হৃদয় মসজিদের সাথে সম্পৃক্ত থাকে। (বোখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ)

✅ দুনিয়ার প্রতি নিরাসক্তি ও বিলাসিতা পরিত্যাগ করা,,,

এতেকাফকারী তার দুনিয়াবী ব্যস্ততা থেকে দূরে থাকে এবং এতেকাফস্থলে দুনিয়ার ভোগ সামগ্রী থেকে নিরাসক্ত হয়ে কেমন যেন অপরিচিত হয়ে যায় ঐ পথিকের ন্যায় যে গাছের ছায়ায় কিছু সময় বিশ্রাম নেয়ার পর তা ত্যাগ করে চলে যায়। ক্ষতিকর বদ-অভ্যাস ও কুপ্রবৃত্তি দুরিকরণে নিজেকে তৈরিকরণ।

✔️✔️ এতেকাফকারীর জন্য নিষিদ্ধ কাজসমূহ ✔️✔️

✅ অতিরিক্ত কথা ও ঘুম, অহেতুক-কাজে সময় নষ্ট, মানুষের সাথে বেশি বেশি মেলা-মেশা ইত্যাদি কাজ যা এতেকাফের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যকে ব্যহত করে। 

✅  ক্রয় বিক্রয়, কেননা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মসজিদে ক্রয়-বিক্রয় করতে নিষেধ করেছেন। ( মুসলিম শরীফ ) তবে একান্ত প্রয়োজন হলে ভিন্ন কথা। যেমন এতেকাফকারী নিজের পরিবারের খাদ্য জোগান দেয়ার উদ্দেশ্যে মসজিদের বাইরে ক্রয়-বিক্রয় করলে তাতে অসুবিধা নেই। 

✅ কামভাব সহ স্ত্রী আলিঙ্গন, কেননা তা সর্বসম্মতিক্রমে হারাম।

✅ বায়ু নি:সরণ, এটি মসজিদের আদবের পরিপন্থী। তাই পারতপক্ষে এ কাজ থেকে বিরত থাকা উচিত।

Comments

  • মাহে রমজানুল মুবারোকের                           
              উপহার এতেকাফ।এর বর্ণনা

    ২০ রমজান এর সুর্য ডুবার আগে মসজিদে এতেকাফের জন্য প্রবেশ করতে হবে ইদের চাঁদ উদিত হলে বের হয়ে আসবে।

    এতেকাফ হল সুন্নতে মোয়াক্কাদা আলাল কেফায়া। এলাকার কিছুলোক আদায় করলে সকলের দায়িত্ব আদায় হয়ে যাবে।

    এটা খুবই ফজিলতময় এবাদত, যা নবী কারীম ( সাল্লাল্লাহুআলায়হিওয়াসাল্লাম) প্রতি রমজানেই পালন করতেন।

    এতেকাফকারীর দোয়া আল্লাহ কবুল করেন।

    এতেকাফ মসজিদে হারাম এরপর মসজিদে নববী এরপর জুমা মসজিদ এরপর এবাদতখানায় উত্তম।

     রমজানে এতেকাফ এর জন্য রোজা রাখা শর্ত।

     মহিলারা ঘরে নামাজের জায়গায় এতেকাফ থাকতে পারে।

    তবে মহিলাদের এতেকাফ অবস্থায় পিরিয়ড হলে রোজা রাখতে পারে না তাই এর ফলে এতেকাফ ভঙ্গ হয়ে যাবে।

    এতেকাফকারী বেহুদা কথা না বলে ধর্মিয় আলাপচারিতা করতে পারবে।

    এতেকাফ এর উদ্দেশ্য হল শবে কদর তালাশ করা তাই শেষ ১০ দিনের বেজোড় রাত সমুহে এবাদতে কাটানো দরকার।

    এতেকাফ কারী বিনা প্রয়োজনে মসজিদের এরিয়া থেকে বের হলে এতেকাফ নস্ট হয়ে যাবে।

    প্রয়োজনে বের হওয়ার অনুমতি আছে যেমন মসজিদের এরিয়ায় বাথরুম না থাকলে মসজিদের বাহিরে নিকটবর্তী বাথরুম ব্যবহার করার জন্য বের হতে পারবে।

    এতেকাফকারীর স্বপ্নদোষ হলে সাথে সাথে মসজিদ থেকে বের হয়ে যাবে, প্রয়োজনে দেরী না করে মসজিদের চুনের দেওয়ালে তায়াম্মুম করে নিয়ে বের হয়ে গোসল করে পাক হয়ে মসজিদে প্রবেশ করবে।

    এতেকাফ কারী বিনা প্রয়োজনে মসজিদের বাহিরে যে অজুখানা আছে তাতে বসে সনয় নস্ট করা জায়েজ নাই।

    এতেকাফ অবস্থায় কোরান তেলাওয়াত, হাদীস পাঠ, নবী অলির জীবনী পাঠ, জিকির আজকার, দরুদ পাঠ, ওয়াজ শ্রবন ইত্যাদী কাজে ব্যায় করা এবং সকলের জন্য দোয়া করার মাধ্যমে ব্যয় করা চাই।

    আল্লাহ সকলকে এ ফজিললতময় আমল জীবনে একবার হলেও আদায় করার তৌফিক দান করুক (আমিন।)
  • সুবাহান আল্লাহ
Sign In or Register to comment.