الصلوۃ والسلام علیک یا رسول اللہ (صلی اللہ علیہ وسلما) اللہ رب محمد صلی علیہ وسلما و علی زویہ والہ ابدالدھور وکرما আসসলাতু ওয়াসসলামু আলাইকা ইয়া রাসুলাল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম).
Gulam-E-Mustafa Hoon Din Ka Paigam Laya Hoon, Pilaan-E-Ke Liye Ahmad Raza Ka Jaam Laya Hoon.

যে কুরবানী করতে চায় সে কোন কাজ থেকে বিরত থাকবে?



যে ব্যক্তি যিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখার মাধ্যমে বা জিলকদ মাসের ৩০ দিন পূর্ণ হওয়ার মাধ্যমে যিলহজ্জ মাসে প্রবেশ করল এবং কুরবানী করার ইচ্ছা পোষণ করল তার জন্য কুরবানীর পশু জবাই করা পর্যন্ত নখ, চুল বা শরীর থেকে চামড়া উঠানো থেকে বিরত থাকবে।
_______________
উম্মু সালামাহ রাদিয়াল্লাহুতায়ালাআনহা.হতে বর্ণিত,
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহুআলায়হিওয়াসাল্লাম বলেছেন:

তোমাদের মাঝে যে কুরবানী করার ইচ্ছে করে সে যেন যিলহজ্জ মাসের চাঁদ দেখার পর থেকে চুল ও নখ কাটা থেকে বিরত থাকে।

ইমাম মুসলিম হাদিসটি বর্ণনা করেছেন।

তার অন্য একটি বর্ণনায় আছে, সে যেন চুল ও চামড়া থেকে কোন কিছু স্পর্শ না করে। অন্য বর্ণনায় আছে ,কুরবানীর পশু যবেহ করার পূর্ব পর্যন্ত এ অবস্থায় থাকবে।

#সহীহ_মুসলিম: ১৯৭৭, #মিশকাত: ১৪৫৯
------
যিলহজ্জের দশ দিন শুরু হওয়ার পর যদি নিয়ত করে তবে নিয়ত করার সময় থেকেই নখ-চুল কাটা থেকে বিরত থাকবে। নিয়ত করার আগে কেটে থাকলে তাতে গুনাহ হবে না।

এর পেছনে হেকমত হল, হাজীদের সাথে কুরবানী কারীর কিছু ক্ষেত্রে বৈশিষ্টগত মিল থাকা। অর্থাৎ হাজীগণ যেমন কুরবানী করার মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করে থাকে তেমনি কুরবানীকারীও কুরবানির মাধ্যমে আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করে থাকে। ঠিক তদ্রূপ হাজী সাহেবগণ যেমন এহরাম অবস্থায় নখ-চুল কাটা থেকে বিরত থাকে কুরবানীকারীগণও নখ-চুল ইত্যাদি কাটা থেকে বিরত থেকে তাদের এই অবস্থার সাথে শামিল হয়।

এই ভিত্তিতে মাসয়ালা হল, কুরবানী কারীর পরিবারের জন্য নখ-চুল ইত্যাদি কাটা জায়েয। নখ-চুল কাটা থেকে বিরত থাকার হুকুম কেবল কুরবানী কারীর জন্য প্রযোজ্য। যাদের পক্ষ থেকে কুরবানী করা হচ্ছে তাদের সাথে এর কোন সম্পর্ক নেই। কারণ, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে কুরবানী করতে ইচ্ছুক,তিনি বলেন নি যে, যাদের পক্ষ থেকে কুরবানী করা হচ্ছে তারাও বিরত থাকবে। তাছাড়া তিনি তাঁর পরিবারের কাউকে নখ-চুল কাটা থেকে বিরত থাকতে আদেশ করেছেন এমন কিছু বর্ণিত হয় নি।
.
.
জিলহজ্জ মাস শুরু হচ্ছে, ইন শা আল্লাহ আগামী সেপ্টেম্বরের ৩ তারিখ থেকে ! সুতরাং যারা কুরবানী দেবার নিয়ত করেছেন তারা ৩ তারিখের আগেই এই কাজ গুলো থেকে বিরত থাকবেন #ইন_শা_আল্লাহ্‌!
.

Comments

Sign In or Register to comment.